আল্লাহর কাছে আশাবাদ ব্যক্ত করার ফযীলতের বর্ণনা

[Note: এ অধ্যায়ের কুরআনের আয়াত গুলো পরে আপডেট করা হবে]

 

৪৪০. আবু হুরাইরা (রা) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সা) বলেন যে, মহামহিম আল্লাহ বলেনঃ  “আমি আমার বান্দার ধারণা অনুযায়ীই আছি (অর্থাৎ যে আমার সম্পর্কে যেরূপ ধারণা রাখে, আমিও তার সাথে সেরূপ ব্যবহার করি)।  সে যেখানেই আমাকে স্মরণ করে, আমি সেখানেই তার সাথে আছি।  “আল্লাহর শপথ! তোমাদের কেউ বৃক্ষলতাহীন মরু প্রান্তরে তার হারানো বস্তু পেয়ে যেরূপ আনন্দিত হয়, আল্লাহ তাঁর বান্দার তাওবায় এর চাইতেও অনেক বেশি আনন্দিত হন। (আল্লাহ আরো বলেন) যে ব্যক্তি আমার কাছে আসতে এক বিঘত অগ্রসর হয়, আমি তার দিকে এক হাত এগিয়ে যাই; আর যে ব্যক্তি আমার দিকে এক হাত অগ্রসর হয়, আমি তার দিকে এক গজ অগ্রসর হই। সে যখন আমার দিকে হেঁটে হেঁটে এগিয়ে আসে, আমি তার দিকে দৌড়ে এগিয়ে যাই। (বুখারী, মুসলিম)


৪৪১. জাবের ইবনে আবদুল্লাহ (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি নবী (সা) কে তাঁর ইন্তিকালের তিন দিন পূর্বে বলতে শুনেছেনঃ তোমাদের কেউ যেন মহামহিম আল্লাহর প্রতি সুধারণা না রেখে মারা না যায়। (মুসলিম)


৪৪২. আনাস (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা) কে বলতে শুনেছি যে, মহান আল্লাহ বলেনঃ হে আদম সন্তান! তুমি যতো দিন পর্যন্ত আমার কাছে দো’য়া করতে থাকবে এবং ক্ষমা প্রার্থনা করতে থাকবে, আমি ততো দিন তোমার গুনাহ মাফ করতে থাকবো, তা তুমি যাই করে থাকো, সেদিকে আমি ভ্রূক্ষেপ করব না। হে আদম সন্তান! তোমার গুনাহ যদি আকাশচুম্বি হয় অর্থাৎ আকাশেও পৌঁছে যায়, অতঃপর তুমি আমার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো তাহলে আমি তোমাকে ক্ষমা করবো। হে আদম সন্তান! তুমি পৃথিবী পরিমাণ গুনাহ নিয়েও যদি আমার সাথে সাক্ষাত করো এবং আমার সাথে কিছু শরীক না করে থাকো, তাহলে আমিও এ পরিমাণ ক্ষমা নিয়ে তোমার কাছে আসবো।

ইমাম তিরমিযী হাদীসটি বর্ণনা করে বলেন, এটি হাসান হাদীস।


 

Was this article helpful?

Related Articles

Leave A Comment?