শরয়ী কারণ ছাড়া ধন-সম্পদ বিনষ্ট করা নিষেধ

শরীয়তের পক্ষ থেকে অনুমোদিত ক্ষেত্র ছাড়া অন্য ক্ষেত্রে সম্পদ বিনষ্ট করা নিষেধ।

১৭৮৩. হযরত আবু হোরায়রা (রা) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (স) ইরশাদ করেছেন, আল্লাহ তায়ালা তোমাদের জন্য তিনটি বস্তু পছন্দ করেন এবং তিনটি বস্তু অপছন্দ করেন। তিনি যে তিনটি বস্তু তোমাদের জন্য পছন্দ করেন তা হল, তোমরা তাঁর ইবাদত করবে, তাঁর সাথে কোন কিছু শরীক করবে না। সবাই মিলে আল্লাহর রজ্জু (দ্বীন ইসলাম) আঁকড়ে ধরবে, বিছিন্ন হবে না। তোমাদের জন্য তিনটি বস্তু অপছন্দ করেছেন, তা হলো সমালোচনা অথবা শোনা কথায় কান দেয়া, অধিক চাওয়া এবং মাল-সামান নষ্ট করা। (মুসলিম)


১৭৮৪. হযরত ওয়াররাদ (মুগীরার সচিব) কর্তৃক বর্ণিত। তিনি বলেন, মুগীরা ইবনে শু’বা (রা) আমাকে দিয়ে মুয়াবিয়া (রা) -এর নামে একটি পত্র লিখালেন, তার মধ্যে ছিল, নবী করীম (স) প্রত্যেক ফরয নামাযের পরে বলতেন, ‘আল্লাহল ছাড়া কোন ইলাহ নেই। তিনি এক তাঁর কোন শরীক নেই। সব কর্তৃত্ব তাঁরই হাতে। সকল প্রশংসা তাঁরই জন্য, তিনি প্রতিটি বিষয়ে ক্ষমতাবান। হে আল্লাহ! তুমি কিছু দিতে আগ্রহী হলে কেউ তা ঠেকানোর মতো নেই আর তুমি না দিলে কেউ তা দেয়ার মতো নেই। কোন মর্যাদাবানের মযার্দা তোমার কাছে কোন উপকারে আসে না। তিনি তাঁকে পত্রে আরো লিখলেন, নবী করীম (স) অনর্থক ও উদ্দেশ্যহীন বাক্যলাপ করতে, ধন-সম্পদ নষ্ট করতে এবং অধিক চাওয়া হতে নিষেধ করেছেন। তিনি মায়ের নাফরমনি করতে; কন্যা সন্তানদের জীবন্ত করব দিতে এবং অত্যাচারের মাধ্যমে কোন কিছু অর্জন করতেও নিষেধ করেছেন। (বুখারী ও মুসলিম)


 

Was this article helpful?

Related Articles

Leave A Comment?