লোকদের সাক্ষাতে

একজন মুসলিমের সাথে সাক্ষাতে সুন্নাহগুলো-

১। সালাম প্রদানঃ

রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিলঃ ‘কোন ইসলাম উত্তম (কাজের ক্ষেত্রে)?’ তিনি বলেন, ‘লোকদের খাবার খাওয়ানো এবং তোমার পরিচিত ও তোমার অপরিচিতকে সালাম প্রদান।’১৬২

২। সালামকে বর্ধিত করাঃ

ওয়ালাইকুমুস সালাম এর সাথে ওয়ারাহতুল্লাহি ওয়া বারকাতুহ এর মাধ্যমে, এতে তিরিশটি নেকী হয়।১৬৩

একজন মুসলিম দিনে রাতে বহুবার সালাম উচ্চারণ করে থাকে।

মনে রাখবেন একজন বিদায় নেয় তখনও পূর্ণ সালাম দেয়া উচিতঃ

যখন তোমাদের কেউ সাক্ষাতে আসে তখন বলবেঃ সালাম, এবং যখন কেউ বিদায় নেয়ার সিদ্ধান্ত নেবে তখনও বলবেঃ সালাম।১৬৪

৩। হাসিমুখে সাক্ষাত, যেমন নবী সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ
কোন ভাল জিনিসকেই ছোট করে দেখবে না- যদিও তা তোমার ভাইয়ের সাথে হাসিমুখে সাক্ষাতও হয়।১৬৫

৪। করমর্দন (হাতে *মুসাফা) করা-
এমন দুইজন মুসলিম নেই যারা পরষ্পর সাক্ষাত করে এবং হাত মুসাহা করে, তারা তাদের আলাদা হবার পূর্বেই ক্ষমা করে দেয়া হয়।১৬৬

৫। কালিমা তাইয়্যেবাহ (উত্তম কথা) বলাঃ

“আমার বান্দাদেরকে বলুন যা উত্তম তা বলতে। নিশ্চয়ই শয়তান তাদেরকে তাদের মধ্যে মন্দের প্ররোচনা দেয়, নিশ্চয়েই শয়তান মানুষের স্পষ্ট শত্রু।”১৬৭

নবী সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-

একটি কালিমা আত তাইয়্যেবাহ একটি সাদাকাহ। ১৬৮

কালিমা তাইয়্যেবার মধ্যে রয়েছে আল্লাহর স্মরণ, দো’আ, সালাম, অন্যদের প্রশংসা করা তাদের ভাল কর্মাবলীর জন্য, উত্তম ব্যবহার, উত্তম আচরণ এবং কর্ম।

 

 


১৬২ আল বুখারী হা/১২ এবং মুসলিম হা/ ৩৯।
১৬৩ আবু দাউদ হা/৫১৯৫, আত তিরমিজি হা/২৬৮৯ ।
১৬৪ আবু দাউদ হা/৫২০৮, আত তিরিমিজি হা/২৭০৬।
১৬৫ মুসলিম হা/২৬২৬।
১৬৬ আবু দাউদ হা/৫২১২। আত তিরমিজি ২৭২৭।
১৬৭ বানী ইসরাঈল ১৭ঃ৫৩
১৬৮ আল বুখারী হা/২৯৮৯, মুসলিম হা/১০০৯।

Was this article helpful?

Related Articles

Leave A Comment?