ফরযের সাথে সাথে সুন্নাতে মুয়াক্কাদাহ কায়েম করার গুরুত্ব এবং তাদের স্বল্পতম, পরিপূর্ণ ও মধ্যবর্তী সুন্নাতসমূহ

১০৯৮. হযরত উম্মুল মু’মিনীন হাবিবা রামলাহ বিনতে আবু সুফিয়ান (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা) কে বলতে শুনেছিঃ যে কোন মু’মিন বান্দা একমাত্র মহান আল্লাহর উদ্দেশ্যে প্রতিদিন ফরয নামাযগুলো ব্যতীত বার রাকা’আত নফল নামায পড়ে মহান আল্লাহ তার জন্য জান্নাতে একটি ঘর তৈরি করবেন অথবা বলেছেন, তার জন্য জান্নাতে একটি ঘর তৈরি করা হয়। (মুসলিম)


১০৯৯. হযরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা)-এর সাথে নফল নামায পড়েছি, যুহরের (ফরযের) আগে দু’রাকাআত ও পরে দু’রাকাআত, জুমু’আর (ফরযের) পরে দু’রাকাআত, মাগরিবের (ফরযের) পর দু’রাকাআত এবং এশার (ফরযের) পরে দু’রাকাআত। (বুখারী ও মুসলিম)


১১০০. হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মুগাফফাল (রা) থেকে বর্ণিত। রাসূলূল্লাহ (সা) বলেছেনঃ প্রত্যেক দু’ আযানের মাঝখানে নামায রয়েছে। প্রত্যেক দু’ আযানের মাঝখানে নামায রয়েছে। প্রত্যেক দু’ আযানের মাঝখানে নামায রয়েছে। তৃতীয়বারে বলেছেনঃ যে ব্যক্তি ইচ্ছা করে তার জন্য। (বুখারী ও মুসলিম)


 

Was this article helpful?

Related Articles

Leave A Comment?