পানি পান সংক্রান্ত ফযীলত ও বর্ণনা

দাঁড়িয়ে পানি পান করা জায়েয তবে বসে পান করা উত্তম

৭৬৭. ইবনে আব্বাস (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি নবী (সা) কে যমযমের পানি পান করিয়েছি। তিনি দাঁড়িয়েই তা পান করেছেন। (বুখারী, মুসলিম)


৭৬৮. নাযযাল ইবনে সাবরা (র) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আলী (রা) (কুফার) বাবুর রাহবাহ নামক স্থানে এলেন, দাঁড়িয়ে পানি পান করলেন, তারপর বললেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা) কে এরূপই করতে দেখেছি, যেরূপ তোমরা আমাকে করতে দেখলে।    (বুখারী)


৭৬৯. ইবনে উমার (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমরা রাসূলুল্লাহ (সা)-এর যামানায় কখনো চলন্ত অবস্থায় আহার করতাম এবং দাঁড়ানো অবস্থায় পানি পান করতাম।

ইমাম তিরমিযী হাদীসটি উদ্ধৃত করে বলেছেন, এ হাদীসটি হাসান ও সহীহ।


৭৭০. আমর ইবনে শুআইব (র) থেকে পর্যায়ক্রমে তাঁর পিতা ও তাঁর দাদার সূত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা) কে কখনো দাঁড়িয়ে আবার কখনো বসে পানি পান করতে দেখেছি।

ইমাম তিরমিযী হাদীসটি উদ্ধৃত করে বলেছেন, হাদীসটি হাসান ও সহীহ।


৭৭১. আনাস (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সা) দাঁড়িয়ে পানি পান করতে নিষেধ করেছেন। কাতাদা (র) বলেন, আমি আনাস (রা) কে জিজ্ঞেস করলাম, তা খানা খাওয়ার ব্যাপারে কি হুকুম? তিনি বলেন, এটা তো তার চেয়েও বেশি খারাপ অথবা নিকৃষ্ট কাজ।

ইমাম মুসলিম হাদীসটি উদ্ধৃত করেছেন। ইমাম মুসলিমের অপর বর্ণনায় রয়েছেঃ নবী (সা) দাঁড়িয়ে পানি পান থেকে সাবধান করে দিয়েছেন।


৭৭২. আবু হুরাইরা (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা) বলেছেনঃ তোমাদের কেউ যেন দাঁড়িয়ে পান না করে। যে ভুলবশত এরূপ করে সে যেন বমি করে দেয়। (মুসলিম)


 

Was this article helpful?

Related Articles

Leave A Comment?