আরাফা ও আশুরার দিন এবং মুহাররমের নবম তারিখে রোযা রাখার ফযীলত

১২৫১. হযরত আবূ কাতাদা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে আরাফাতের দিনের রোযা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলো। তিনি জবাব দিলেনঃ “এর দ্বারা এক বছর পূর্বের ও এক বছর পরের গুনাহ মাফ হয়ে যায়।” (মুসলিম)


১২৫২.  হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আশুরার দিন রোযা রাখেন এবং ঐ দিন রোযা রাখার নির্দেশ দেন। (বুখারী ও মুসলিম)


১২৫৩. হযরত আবু কাতাদা (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে আশুরার দিনের রোযার কথা জিজ্ঞেস করা হল। তিনি বলেনঃ “তাতে বিগত এক বছরের গুনাহ মাফ হয়ে যায়।” (মুসলিম)


১২৫৪. হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ আগামি বছর পর্যন্ত যদি আমি বেঁচে থাকি তাহলে নয় তারিখও রোযা রাখবো। (মুসলিম)


 

Was this article helpful?

Related Articles

Leave A Comment?